Shopify Wokiee Premium Theme Customization; How I Earn $200?

Wokiee Theme Customization করে $200 যেভাবে আয় করলাম!

আজ আমি ফ্রিল্যান্সিং গিক এর এই পোষ্টের মাধ্যমে আপনাদের জানবো কিভাবে মার্কেটপ্লেস এর বাইরে থেকে 200 ডলার ইনকাম করলাম। আপনারা যারা অনলাইনে কাজ করে থাকেন তারা বুঝবেন শপিফাই এর কি পরিমান কাজ আছে অনলাইনে এবং মার্কেটপ্লেসগুলোতে

আপনারা হয়তো জানেন আসলে আমি একজন গরীব ফ্রিল্যান্সার 😋। গরিব ফ্রিল্যান্সার এর কাছে 200 ডলার অনেক বেশি;অনেক বড় একটা বিষয়। তো চলুন কথা না বাড়িয়ে শুরু করা যাক।

    wokiee-shopify-premium-theme-customization-freelancing-geek

    শুরুর কথাঃ

    গত মাসের শেষ দিকে আমার ব্যক্তিগত ফেসবুক পেজ যেটা আছে সেখানে হঠাৎ করে একটা মেসেজ পাই। ইন্ডিয়ান একজন ভদ্রলোক হঠাৎ করে আমাকে মেসেজ দিয়ে জিজ্ঞাসা করে যে আমি শপিফাই এর কাজ কেমন পারি? থিম কাস্টমাইজেশন কিরকম পারি? আগে কখনো Wokiee Premium Theme Customization এর কাজ করেছি কিনা? কোডিং কেমন বুঝি? এ সমস্ত কথা হলো। উনি আমাকে জিজ্ঞেস করতে থাকলেন আমি ওর সুন্দর করে গুছিয়ে তার উত্তর দিতে থাকলাম। যদিও বেশ কয়েকটা প্রিমিয়াম থিম কাস্টমাইজেশন এর কাজ করেছি কিন্তু সত্যি কথা Wokiee থিম নিয়ে কাজ করিনি। কিন্তু তার সাথে আমি যখন কথা বলেছিলাম তাকে আশ্বস্ত করে বললাম যে আমি আসলে Wokiee থিম কাস্টমাইজেশন এর কাজ পারব এবং তার রিকোয়ারমেন্ট বা, তার পছন্দের মধ্যেই তাকে সুন্দর করে একটি শপিফাই ই-কমার্স সাইট বানিয়ে দিতে পারব Wokiee থিম দিয়ে।

    Wokiee Premium Theme Customization Budget

    কাজ শুরু করার আগে মানে Budget নিয়ে আলোচনার আগে মনের ভিতর অনেক চিন্তা আর কল্পনা উঁকি দিতে লাগলো। জনপ্রিয় সকল ফেসবুক গ্রুপ পেইজ এ রথী-মহারথী ফ্রিল্যান্সার'রা নতুন দের সব সময় ইন্ডিয়ান আর পাকিস্তানী ক্লাইন্ট থেকে দূরে থাকার উপদেশ দিয়ে থাকেন। যেহেতু এই ক্লাইন্ট ইন্ডিয়ান তাই বড় ভাইদের পুরনো অভিজ্ঞতার আলোকে আমি আসলে অনেক ভয়ে ছিলাম। কারনঃ

    • ইন্ডিয়ান এবং পাকিস্তানী বায়াররা অনেক ট্রিকি হয়ে থাকে;
    • প্রায়ই তারা পেমেন্ট নিয়ে ঘাপলা করে থাকে।
    • কাজ করিয়ে টাকা দেয় না।
    • বার বার অহেতুক রিভিশন চায়।
    • কাজ ভাল করার পরেও খারাপ রিভিউ দেয়।

    তো যাই হোক সাহস করে শুরু করেছিলাম তার সাথে তো সে একসময় আমাকে জিজ্ঞাসা করলো যে এই কাজের জন্য আমি আসলে কত টাকা চাই? কত ডলার নিব তার কাছ থেকে? আমি যতটুকু বুঝলাম আসলে যেহেতু বায়ার নিজে বলেছে সে নিজেই পেমেন্ট মেথড থেকে শুরু করে অন্যান্য যেমন প্রোডাক্ট আপলোড, লিগ্যাল পেইজ এর কাজগুলো সে নিজেই করবে আমি শুধু কাস্টমাইজেশন করে দেবো। যেহেতু সে থিমপরেস্ট থেমে Wokiee Premium Theme টি কিনে নিয়েছে আমি ভাবলাম এখানে খুব বেশি আসলে ঝামেলার কোন কাজ নেই। তো তাকে আমি বললাম যে এই কাজের জন্য তুমি আমাকে যদি 100 ডলার দাও তাহলে আমি তোমাকে সুন্দর করে গুছিয়ে কাজটি করে দিতে পারবো।

    অবাক করা ব্যাপার হল ক্লাইন্ট আমাকে 200 ডলার এই কাজের জন্য 200 টাকা দিতে রাজি হলো কিন্তু শর্ত সাপেক্ষে। সে শর্তটি আসলে কি ছিল? সেই শর্ত ছিলঃ

    যদি আমি তাকে সুন্দরভাবে কাজটি করে দিই; তার মনের মত করে দিই তাহলে সে আমাকে এই কাজের জন্য 200 ডলার পে করবে। আর যদি আমি তার কাজটি সুন্দরভাবে করতে না পারি তাহলে ক্লায়েন্ট আমাকে আমার সময় এবং কাজের মূল্য হিসেবে 100 ডলার পেয়ে করবে এবং সে কাজটি ডাস্টবিনে ফেলে দিবে। আমাকে বাদ দিয়ে অন্য একজন ফ্রিল্যান্সার কে হায়ার করে সে কাজটি করিয়ে নেবে!!!

    আরো একটা বিপত্তি বাধলো; সে পেমেন্ট দিতে চাইল পে-পাল এ। আমার কাছে কিন্তু কোন পেপেল একাউন্ট নেই। তাহলে আমি কিভাবে তার কাছ থেকে পেমেন্ট নিব? এটা নিয়ে অনেক ভয়ে ছিলাম। এর পরও নিজের অভিজ্ঞতার খাতায় একটি ভাল অভিজ্ঞতা অভিজ্ঞতা হবে সেটা ভেবে আমি মূলত কাজটি সাহস করে নিয়ে ফেললাম। পেমেন্ট এবং অন্যান্য ইস্যু নিয়ে পরে ঘাপলা হলেও সামাল দিবো। সে আমাকে কাজের শুরুতে এডভান্স দিতে চাইল কিন্তু যেহেতু আমার পেপাল নেই তাই আমি এডভান্স পেমেন্ট এর দিকে গেলাম না।

    তাকে বললাম যে কাজটা আগে আমাকে করতে দাও, তুমি না হয় কাজ শেষে পেমেন্ট করো। কিন্তু তাও রাজি হলো না। এরপরও আমি তাকে ইনিয়ে-বিনিয়ে আশ্বস্ত করে নিলাম যে আমাকে কাজটা কমপ্লিট করতে দাও; তুমি আমাকে পেমেন্ট দিতে কোন অসুবিধা হবে না।

    Start Shopify Wokiee Premium Theme Customization

    তো খুব অল্প সময়ের ভিতর Wokiee Premium Theme Customization এর কাজ শুরু করে দিলাম। ক্লাইন্ট মেইলে তার থিমফরেস্ট থেকে কেনা থিমের লাইসেন্স কী সহ দিয়ে দিল। সাথে তার শপিফাই ওয়েবসাইট এর ইউজারনেম ও পাসওয়ার্ড ছিল। লগইন করে নিলাম।

    ভেবেছিলাম ইউটিউবে গিয়ে Wokiee থিম কাস্টমাইজেশন নিয়ে কিছু ভিডিও দেখব; অল্প সময়ের ভিতর দেখে মোটামুটি মানের একটা সাইট ডিজাইন করে দেবো। কিন্তু দুঃখের বিষয় ইউটিউবে গিয়ে আমি ভালো কোনো ভিডিও দেখতে পেলাম না। যেটা আমাকে আরো হতাশ এবং ভাবিয়ে তুলল যে কিভাবে কাজটি আমি করব। থিমের ডকুমেন্টেশন পড়ে যতটুকু বুঝলাম আসলে বায়ার রিকোয়ারমেন্ট অনুযায়ী যতটুকু প্রয়োজন ততটুকু থিম ডকুমেন্টেশন এ নেই। রীতিমত যখন আরো হতাশ, কাজটি ছেড়ে দেবো। বায়ার কে জানিয়ে দেবো যে কাজটি আসলে আমি করতে পারবোনা। তোমার সময় এখন করার জন্য তোমার সময় নষ্ট করার জন্য আমি আসলে আন্তরিকভাবে দুঃখিত। এই ধরনের কিছু টাইপ করতে যাবো ঠিক তখন ই ঘটলো মজার ঘটনা। বায়ার আমাকে সব সময় হোয়াটসঅ্যাপ এ মেসেজ দিত। কতদূর কি করলাম, না করলাম সব সময় খোঁজ-খবর নিতো।


    শপিফাই ব্যাসিক এবং ড্রপশিপিং নিয়ে পড়ুনঃ শপিফাই মানে কি? What Is Shopify? What Is Dropshipping?


    যখন সে দেখল যে কাজের গতি কিছুটা মন্থর, তখন সে কোত্থেকে একটা ভিডিও নিয়ে আসলো ইউটিউব থেকে। আর গাইডলাইন দিলো এইভাবে এভাবে করো। এভাবে করলে তুমি সফল হতে পারবে। যেখানে সুন্দর একটি গাইডলাইন ছিল তখন আবার আমি সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করলাম। জানিনা আমি কাজটি আদৌ করতে পারবো কিনা। এ নিয়ে মোটামুটি দ্বিধাদ্বন্দে ছিলাম।

    Wokiee Theme Layout Change

    আপনি যদি Wokiee Theme এর Layout দেখেন তাহলে দেখবেন সেখানে ২৩ টি ডেমো বা, লেআউট আছে। তো ক্লায়েন্ট এর রিকয়ারমেন্ট হলো ২১ নাম্বার ডেমো তে কাজ করতে হবে কিন্তু মেগা মেনু নিয়ে আসতে হবে ১৯ নাম্বার থেকে। আবারো বিপদে পড়লাম। কিভাবে একটা ডেমো এর লেআউট চেঞ্জ করে আরেকটা ডেমো এর লেআউট থেকে মেগামেনু নিয়ে আসবো? মূলত মেগামেনু টা তার পছন্দের ছিল এবং তার ব্যবসার ধরন অনুযায়ী বেশ দরকারী। যাই হোক গুগল করে অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে সফল হলাম একটা ডেমো'র লেআউট পরিবর্তন করে অন্য আরেকটা ডেমো'র মেগামেনু নিয়ে আসতে সক্ষম হলাম।

    Change Mega Menu icon; Wokiee Theme

    যাই হোক, মেগামেনু এক্টিভ করার পর সে মেগামেনু'র আইকন গুলো পরিবর্তন করতে চাইলো। আইকন গুলো তার ব্যবসার সাথে যায়না। আসলে আইকন গুলো ছিলো SVG আইকন। আইকন গুলো পরিবর্তন করতে গিয়ে বিপত্তি বাঁধলো সাইজ মিলাতে গিয়ে। অবশেষে সাইজও মিলালাম। বায়ারও খুশি। আর আমি নিজেও চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিলাম সবকিছু। কাজটাকে বেশ উপভোগও করতে লাগলাম। কিন্তু আরো একটা সমস্যা তৈরি হলো। SVG আইকন চেঞ্জ করার পর মাউজ হোভার করলে হোভার কালার কাজ করেনা বা পরিবর্তন হয়না। আবারো হতাশ হয়ে পড়লাম যে কিভাবে কাজটা আমি করব।

    আইকন গুলোকে নোটপেড++ এ ওপেন করে অনেক চেষ্টা করলাম; অনেক সিএসএস ঘাটাঘাটি করলাম অনলাইনে ভিডিও দেখলাম। কাজের কাজ কিছুই হলো না।

    SVG আইকনগুলো ফটোশপে নিয়ে পিএনজি থেকে এস বি আই কনভার্ট করে নিলাম কোন কাজ হচ্ছে না। এক বড় ভাইকে নক করলাম এবং ফেসবুকে দু'একটা গ্রুপে পোস্ট দিলাম আসলে এটা কি কোন ভাবে হবার করলে কালার চেঞ্জ করা যায় কিনা না কিছুই হলো না। তখন বায়ার কে বললাম যে এই কাজটা আমাকে একটু সময় দাও। আমি অন্য কাজগুলো করে নিই; যখন কাজ শেষ করব তখন কাজটা আসলে হয়ে যাবে।

    অন্যান্য কাজ করার পাশাপাশি আমি চিন্তা করতে থাকলাম SVG আইকনের উপর হোভার করলে কিভাবে কালার চেঞ্জ হবে? এই নিয়ে মোটামুটি ঘুম হারাম।

    কয়েকটা সাইট দেখে নিলাম যেখানে বিভিন্ন সাইজের বিভিন্ন কালারের এসবিসি আইকন ডাউনলোড করা যায়; যেমনঃ FlatIcon, FreeIcon, Icons8, IconFinder ইত্যাদি। অবশেষে আমি কাজটি করতে সফল হলাম এবং নিজের কাছে আনন্দ লাগল। বায়ার নিজেও খুশি হল এবং সে আসলে বুঝতে সক্ষম হল যে আমি তার কাছে নিয়ে অনেক মনোযোগী এবং অনেক শ্রম দিয়ে এবং মনোযোগ দিয়ে তার কাজটি করতেছি। সে মোটামুটি আমার কাজে অনেক খুশি এবং জানালো যে তার পরবর্তী প্রজেক্ট যেগুলো আছে সেগুলো আমাকে হায়ার করে নিবে।

    client-satisfaction-buyer-communication-freelancing-geek

    এর মাঝে বায়ারের সাথে আমি মাঝেমধ্যে চ্যাট করতাম, গল্প করতাম। মাঝেমধ্যে দুষ্টামি, ফান করতাম। সেও মোটামুটি এগুলো উপভোগ করতো। চ্যাট এর এক পর্যায়ে জানলাম তার বাড়ি হচ্ছে ভারতের আসামে। সে বড় হয়েছে কেরালা'তে। বর্তমানে দুবাইতে থাকে ফ্যামিলি সহ। তার বিভিন্ন ধরনের বিজনেস আছে। যা যা বলল তাতে বুঝলাম সে আসলে বিশাল বড় ব্যবসায়ী। আসলে সে অনেক চালাক এবং অনেক প্রফেশনাল একজন বায়ার ছিল যাকে নয়-ছয় কোন কিছু বোঝানো সম্ভব না।

    Completing Shopify Project

    এরই মাঝে বায়ার এর দেয়া ডেডলাইন শেষ হতে হতে প্রোজেক্ট প্রায় শেষ পর্যায়ে। কুরবানী ঈদ ও কাছাকাছি চলে আসলো। তাই পেমেন্ট দিতে চাইলো বায়ার। বলল, সামনে তোমার যেহেতু ঈদ, সেহেতু তুমি প্রেমেন্ট টা নিয়ে নাও অর্ধেক মানে 100 ডলার; বাকি 100 ডলার তুমি কাজ শেষে নিও। যখন পেমেন্টের কথা আসলো তখন আবার ভয়ে গলা শুকিয়ে আসলো। কারন আমার তো পেপল নেই! তার কাছ থেকে পেমেন্ট কিভাবে নিব?

    Payment Collection

    বায়ার কে অন্যভাবে বা, অন্যকোন মেথডে পেমেন্ট পে করতে বললে বলে যে আমিতো তোমাকে আগেই জিজ্ঞেস করেছিলাম তোমার পেপল আছে কিনা? পেপল ছাড়া সম্ভব না পেমেন্ট দেয়া। কয়েকজন বড় ভাইকে নক দিলাম পেপল এ পেমেন্ট নেয়ার জন্য। কাজের কাজ কিছুই হল না। ফেসবুক গ্রুপ, মেসেঞ্জার, ফেসবুক পেইজ অনেক কে knock করলাম। কিন্তু কারো কাছ থেকে কোন আশার বাণী শুনতে পেলাম না। এরপর শেষ চেষ্টা হিসেবে দু'একজন দেশের বাইরে থাকা বন্ধু কে knock করলাম যারা দুবাই, আমেরিকা, মালয়েশিয়া থাকে। তাদের আসলে পেপল আছে কিন্তু আমার জন্য ছোট্ট একটা পেমেন্ট নিলে তাদের সমস্যা হবে।। আসলে কেন বুঝলাম না অনেকেই পেপালের পেমেন্টের প্যারা নিতে কোনো ভাবেই রাজী হচ্ছিল না।

    UK তে থাকা আমার বন্ধু মামুনকে আমি নক করলাম যে দোস্ত এই সমস্যা; আমি একটা পেমেন্ট নিতে চাই। আমি এখন কি করবো? সে আমাকে প্রথমে হতাশ করে দিল। তারপরের দিন সে আবার হঠাৎ করে দেখলাম নক করল। যে আসলে দোস্ত এখানে পেমেন্ট নিয়ে অনেক ঝামেলা হয়; সরকারকে এর জন্য কারণ দর্শাতে হয়। তারপরও তোর যেহেতু একটি ছোট পেমেন্ট, সেটা আমি আসলে নিতে চাচ্ছি। তুই আমাকে বল কিভাবে কি করতে হবে?

    যা হোক অন্তত একটু আশা হলেও পেলাম। অবশেষে বন্ধুর একাউন্টে বায়ার থেকে ডলার ট্রান্সফার করলাম। আমার বন্ধু পেমেন্ট নেয়ার পর সে আমাকে তার ব্যাংক একাউন্ট থেকে বিকাশের মাধ্যমে টাকা ট্রান্সফার করে দিল।

    এই 200 ডলার আমার ঈদের আনন্দকে আরেকটু বাড়িয়ে দিলো এবং কাজ করার যে আবেগ, যে উৎসাহ, উদ্দীপনার মাত্রা বাড়িয়ে দিল।

    তো দিনশেষে 'ইচ্ছা থাকলে উপায় হয়।' একথাটার জয় হল।

    মার্কেটপ্লেস ছাড়াই অনলাইনে আয়ঃ

    অনেকেই বলে থাকেন মার্কেটপ্লেস এর বাইরে আয় করা সম্ভব না; অথবা আয় করা গেলেও তাও কালতালীয়। আসলে তা কিন্তু সত্যি নয়। একটু ট্রিক্স খাটালেই আমরা সহজে মার্কেটপ্লেস এর বাইরেও ইনকাম করতে পারি, ক্লায়েন্ট পেতে পারি।


    মার্কেটপ্লেস এর বাইরে ইনকাম কি আদৌ সম্ভব? মার্কেটপ্লেস এর বাইরে আয় করার জন্য কি কি পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে?মার্কেটপ্লেস এর বাইরে আয় করার উপায়; ফ্রিল্যান্সিং টিপস


    Conclusion

    ভারতীয় বায়ার, পাকিস্তানী বায়ার এই ধরনের বাজে অজুহাত নিয়ে পড়ে না থাকাই ভালো। এই কাজটি করার ক্ষেত্রে আসলে আমি পেমেন্ট পাবো এটা মোটেও আশা করিনি। আমি শুধুমাত্র আমার অভিজ্ঞতার ঝুলিতে Wokiee থিম কাস্টমাইজেশন এর একটি অভিজ্ঞতা যোগ হবে শুধুমাত্র এই কারণে কাজটি নিয়েছিলাম। কিন্তু সফলতার কথা হলো আমি আমার কাজের পেমেন্ট, কাজের স্বীকৃতি এবং কাজের অভিজ্ঞতা গুলো অর্জন করলাম।

    মোরাল অফ দ্যা জার্নিঃ

    • ইচ্ছা থাকলে উপায় হয় - এটা মিথ্যা নয়।
    • আপনার ক্লায়েন্ট বা, বায়ার যত চালাক আর প্রফেশনাল হবে আপনার শিক্ষা এবং অভিজ্ঞতাও ভাল হবে।
    • দুনিয়াতে আসলে অসম্ভব বলে কিছুই নেই।
    • যে কোন কাজে মনযোগ এবং আন্তরিকতা থাকলে সেই কাজে আনন্দ বেশি।
    • ভাল কাজের ফল কখনো বৃথা যায় না।

    আপনার কি মনে আছে ক্লায়েন্ট নিয়ে Bill Gates এর সেই বিখ্যাত উক্তি টি?

    Your most unhappy customers are your greatest source of learning.

    bill-gates-quotes-freelancing-geek

    তাহলে কি বুঝলেন? সব কথার সার কথা হলো ক্লায়েন্ট যত বেশি প্রফেশনাল, যত বেশি ট্রিকি হবে সেই ক্লায়েন্ট থেকে আপনি অনেক ভাল কিছু শিখতে পারবেন। আপনার অভিজ্ঞতার ঝুলিতে ভাল কিছু যুক্ত হবে।

    ধন্যবাদ আপনাকে ফ্রিল্যান্সিং গিক এ আসার জন্য ফ্রিল্যান্সিং গিক এর সাথে থাকার জন্য এবং ফ্রিল্যান্সিং গিক এর এই পোস্টটি পড়ার জন্য আমাদের সাথেই থাকুন।

    Post a Comment

    নবীনতর পূর্বতন